আশুলিয়ার চিত্রশাইলে শরিফের অত্যাচরে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ - adsangbad.com

সর্বশেষ

Wednesday, February 24, 2021

আশুলিয়ার চিত্রশাইলে শরিফের অত্যাচরে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ


আশুলিয়া প্রতিনিধি : আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের চিত্রশাইল এলাকার ত্রাস শরিফের অত্যাচরে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ ।

এলাকাবাসী তাকে চেনে একজন দু্র্দান্ত সন্ত্রাসী হিসেবে। মারামারি, রাহাজারি, চাদাঁবাজী, ডিস ব্যবসা নিয়ে কোন্দল, জবর দখল সহ তার বিরুদ্ধে যেন অভিযোগের শেষ নেই।
শরিফ(৩০) এর তার হাত থেকে রেহাই পায়নি তার নিকট আত্মীয়রাও । আশুলিয়া থানায় তার নামে রয়েছে একাধিক মামলা।
শরিফ গংদের নির্মম হামলায় আহত মারাত্মক সেলিনা আক্তার
অভিযোগ আছে অত্র এলাকায় গজিয়ে উঠা কিশোরগ্যাংয়ের পৃষ্টপোষক শরিফ। অত্র এলাকায় তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায় না। বেশীর ভাগ মানুষ জানায় সে এলাকার ত্রাস তার বিরুদ্ধে কথা বললে তার হাতে বা তার লোকজন দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ ক”জন এলাকাবাসি জানান শরিফ নাকি ঐ এলাকার যুবলীগ নেতা, কিন্তু কোন পদে আছে তা কেউ বলতে পারে না।
তার রয়েছে নিজস্ব ক্যাডার বাহিনি কেউ তার বিরুদ্ধে কিছু বললে সে ও তার লোকজন দিয়ে তার উপর হামলা চালায়।

অতি সম্প্রতি গত গত বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধার দিকে আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের চিত্রশাইল এলাকায় শরিফ(৩০) ও তার লোকজন মিলে আপন খালা সেলিনা আক্তার(৩৭) কে বেদমভাবে পিটিয়ে মেরে মারাত্মক আহত করে,এ সময় তার ছেলে ওমর ফারুক রাজিব(১৯) এগিয়ে তাকেও মেরে তার হাত ভেঙ্গে দেয়। এবং প্রায় ১৭বছর ধরে বসবাস করা বাড়িটি জবর দখলে  চেষ্টা চালায় এ সময় সেলিনা ও তার  ছেলেকে মেরে রক্তাক্ত জখম করে এবং তার বাসার ভাড়াটিয়াদের কে মারধর করে শরিফ ও তার ক্যাডার বাহিনির লোকজন । এ ব্যপারে ভুক্তভোগীর স্বামি মোঃ রুবেল মিয়া বাদী হয়ে, আব্দুল আলিম(৫৫),শরিফ(৩০), মোঃ সাইদ (২০), সুফিয়া

শরিফ গং দের নির্মম হামলার শিকার ওমর ফারুক রাজিব

(৪৮) এছাড়াও স্থানীয় সোহরাবের ভাড়াটিয়া রংপুরের সবুজ মন্ডল (২১)সহ মোট ছয় জন কে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। আশুলিয়া থানা পুলিশ গত ১৯ ফেব্রুয়ারি রাতে সোহরাবের ভাড়াটিয়া রংপুরের সবুজ মন্ডল (২১) কে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠায়।
তার গ্রেফতারের পর শরিফসহ অন্যানো আসামীরা বর্তমানে পালাতক রয়েছে।
  এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী সেলিনা জানান, আমি দীর্ঘ ১৭ বছর যাবৎ এই বাড়িতে বসবাস করে আসছি। আমার বাড়িটি কিছু জমি ক্রয় করা এবং কিছু অংশ পৈতৃিক সূত্রে পাওয়া কিন্তু গত বুধবার শরীফ, সাইদ, আব্দুল হালিম, সুফিয়া, সবুজ মন্ডল সহ অজ্ঞাত আরো ৬/৭ লোক জোর পূর্বক আমার বাড়িতে প্রবেশ করে বাড়ির বাইরে দেয়ালে জোর পূর্বক সাইনবোর্ড লিখতে  চায় আমি বাধা দিলে সে আমাকে কিল ঘুষি মারিতে থাকে এ সময় সে আমার ডান চোখে সাজোরে ঘুষি মারে এবং আমার ঠোটে ঘুষি মারে রক্তাক্ত করে এবং সাইদ বাশঁ দিয়ে সারা শরিরে পেটাতে থাকে , এ সময় আমার ছেলে আমাকে উদ্ধারের জন্য এগিয়ে এলে শরিফ  ও অন্যানোরা মিলে আমার ছেলেকে বেদমভাবে মেরে রাস্তায় ফেলে রাখে এসময় আমার বাসার ভাড়াটিয়ারা এগিয়ে এলে তারা তাদের কে মারধর করে। মারের চোটে আমি ও আমার ছেলে রাস্তায় অজ্ঞান হয়ে পড়ে ছিলাম। জ্ঞান ফিরে দেখি সাভারের এনাম হাসপাতালে আমি ও আমার ছেলে পাশাপাশি বেডে । পরে জানতে পারি আমাদের অজ্ঞান অবস্থায় ফেলে রেখে তারা চলে যায়। পরে আশে পাশের আরো লোকজন ছুটে এসে আমাদের হাসপাতালে ভর্তি করে ।
এলাকাবাসী সন্ত্রাসী শরিফের দ্রুত গ্রেফতার দাবী করেন।
এ ব্যপারে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আশুলিয়া থানার এস আই ইউনুছ আলী জানান, মামলাটি দায়ের পর অভিযুক্ত একজন কে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকীদের দ্রুত গ্রেতারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে। আশারাখি শীগ্রই তাদের গ্রেফতার করতে পারবো।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আবু তাহের মৃধার কাছে মুঠোফোনে শরিফ সম্মন্ধে চানতে চাইলে তিনি বলেন, তাকে চিনি কিন্তু তার কাজকর্ম সম্মন্ধে জানি না। তিনি এর চেয়ে বেশী কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
যুবলীগের শরিফের পদ পদবী জানতে আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহবায়ক কবির হোসেন সরকার ও যুগ্ন-আহবায়ক মইনুল ইসলাম ভূঁইয়া কে মুঠোফোনে কয়েক বার কল করা হলেও তারা কলটি রিসিভ করেননি।
অন্যদিকে একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানাযায় শরিফ আশুলিয়া যুবলীগের কেউ নয়

অভিযুক্ত শরিফ

এ ব্যপারে মুঠোফোনে অভিযুক্ত শরিফের ব্যবহারিত মোবাইল নম্বরে কল করে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সমুহের ব্যপারে জানতে চাইলে সে জানায় তার বিরুদ্ধে সব ষড়যন্ত্র হচ্ছে। এ সকল অভিযোগ মিথ্যা, এছাড়াও তিনি যুবলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত এবং সদস্য বলে জানান।
রাজনীতির কারণে তার প্রতিপক্ষরা এসব রটাচ্ছে।
সেলিনা আক্তার ও তার ছেলে কে মারধরের ব্যপারে জানান এটা আমাদের পারিবারিক সমস্যা, আমার মামা সোহরাব এটা সমাধানের দ্বায়িত্ব নিয়েছে।

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here

Pages