করোনা: প্লাস্টিকের বর্জ্য থেকে গণসংক্রমণের ঝুঁকি - adsangbad.com

সর্বশেষ

Sunday, May 10, 2020

করোনা: প্লাস্টিকের বর্জ্য থেকে গণসংক্রমণের ঝুঁকি


আনলাইন ডেস্ক : দেশে করোনাভাইরাস উপসর্গ ধরা পড়ার পরে শুধুমাত্র একমাসে মাস্ক, হ্যান্ডগ্লাভসসহ সংশ্লিষ্ট প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদন হয়েছে ১৪ হাজার ৫০০ টন। শুধু ঢাকায় উৎপাদন হয়েছে ৩ হাজার ৭৬ টন। যার বড় একটি অংশ যত্রতত্র ফেলার কারণে মাটি ও পানিতে মিশছে। এতে মাটি ও পানিতে জীবাণু ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। যার কারণে ভয়াবহভাবে গণসংক্রমণের ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। সম্প্রতি করোনার সময়ের প্লাস্টিক বর্জ্য পরিস্থিতি নিয়ে করা এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (এসডো)'র গবেষণা প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে।
গবেষণা থেকে সংগঠনটি জানায়, গত ২৬ মার্চ থেকে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত ১ মাসে সারা দেশে পলিথিন ব্যাগের বর্জ্য ৫ হাজার ৭৯৬ টন, পলিথিন হ্যান্ডগ্লাভস সহ ৩ হাজার ৩৯ টন, সার্জিক্যাল হ্যান্ডগ্লাভস ২ হাজার ৮৩৮ টন, সার্জিক্যাল মাস্ক ১ হাজার ৫৯২ টন ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের বোতল থেকে ৯০০ টন প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদন হয়েছে। রাজধানীর পরিসংখ্যানে জানানো হয়, এ সময়ে শুধু ঢাকায়ই সর্বোচ্চ ১ হাজার ৩১৪ টন সার্জিক্যাল হ্যান্ডগ্লাভসের বর্জ্য উৎপাদন হয়েছে। এ ছাড়া, পলিথিন হ্যান্ডগ্লাভস ৬০২ টন, সার্জিক্যাল মাস্ক ৪৪৭ টন, পলিথিন ব্যাগ ৪৪৩ ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের বোতল থেকে ২৭০ টন বর্জ্য উৎপাদন হয়েছে।
এসডো’র ওই জরিপে দেখা গেছে, বাংলাদেশে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার পর থেকে সবচেয়ে বেশি যে ধরনের একবার ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার বেড়েছে সেগুলো হলো- সার্জিকাল ফেসমাস্ক, সার্জিকাল ও পলিথিনের তৈরি পাতলা হ্যান্ডগ্লাভস এবং পলিথিনের বাজারের ব্যাগ। বাংলাদেশের প্রায় ৮৫ শতাংশ জনসাধারণ এখন কোনো না কোনো ধরনের ফেস মাস্ক ব্যবহার করছে। পুরো দেশের ২৩ শতাংশ জনসাধারণ এখন একবার ব্যবহারযোগ্য সার্জিকাল ফেসমাস্ক ব্যবহার করে। এর ২০ শতাংশ শহরাঞ্চলে ও ৩ শতাংশ গ্রামাঞ্চলে থাকেন। লকডাউনের এক মাসে সারাদেশে প্রায় সাড়ে ৪৫ কোটি সার্জিকাল ফেসমাস্ক ব্যবহার করা হয়েছে, যা থেকে অন্তত ১৫ হাজার ৯২ টন প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদিত হয়েছে। রাজধানী ঢাকাতে সার্জিকাল ফেসমাস্কেও ব্যবহার দেশের অন্যান্য শহরাঞ্চলের চেয়ে বেশি। ঢাকা শহরে বর্তমানে বসবাসকারীদের অন্তত ৩৫ শতাংশ নিয়মিত সার্জিকাল ফেসমাস্ক ব্যবহার করছেন।
ঢাকার বাইরে অন্যান্য শহরাঞ্চলগুলোতে এই হার ২৮ শতাংশ। কোভিড-১৯ ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে শহর-গ্রাম উভয় এলাকাতেই একবার ব্যবহারযোগ্য হ্যান্ডগ্লাভস ব্যবহারের প্রবণতা বেড়েছে। দুই ধরনের হ্যান্ডগ্লাভস বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে- পলিথিনের তৈরি হ্যান্ডগ্লাভস ও সার্জিকাল হ্যান্ডগ্লাভস। দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোতে, যেমন- ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, রংপুর, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ প্রভৃতি শহরে সার্জিকাল হ্যান্ডগ্লাভসের ব্যবহার খুব বেশি। তবে অন্যান্য জেলাগুলোতে পলিথিনের তৈরি পাতলা হ্যান্ডগ্লাভস ব্যবহারের প্রবণতা বেশি। বর্তমান জরিপ অনুযায়ী, বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৩০ শতাংশ বাড়ির বাইরে বিভিন্ন কাজের সময় পলিথিনের তৈরি পাতলা হ্যান্ডগ্লাভস ব্যবহার করছে। এদের বেশিরভাগই, প্রায় ২৫ শতাংশ শহরাঞ্চলে বসবাস করে। শহরাঞ্চলে বসবাসকারী এবং রাস্তায় বিভিন্ন পণ্যের ব্যবসায়ী ও দোকানদারদের মধ্যে পলিথিনের পাতলা হ্যান্ডগ্লাভস ব্যবহার বেশি। জরিপ অনুযায়ী শহরবাসী ও দোকনদাররাই পলিথিনের তৈরি পাতলা হ্যান্ডগ্লাভস ব্যবহারকারীদের মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক। 
শুধু তাদের ব্যবহারের পরে ফেলে দেয়া ১২১ কোটি ৬০ লাখ হ্যান্ডগ্লাভস থেকেই এক মাসে উৎপন্ন হওয়া প্রায় তিন হাজার ৩৯ টন প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপন্ন হয়েছে। এই বর্জ্যরে প্রায় ২০ শতাংশ শুধু রাজধানী শহরেই উৎপন্ন হয়েছে। সারা দেশে গড়ে ৯ শতাংশ জনসাধারণ অপেক্ষাকৃত ভারি সার্জিকাল হ্যান্ডগ্লাভস ব্যবহার করেছেন। তবে চলমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপন্ন হয়েছে পলিথিনের শপিং ব্যাগ বা বাজারের ব্যাগ থেকে। গত একমাসে পলিথিনের ব্যাগ থেকে উৎপন্ন হয়েছে ৫ হাজার ৭শ’ ৯৬ কোটি টন প্লাস্টিক বর্জ্য। সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে সব ধরনের খাদ্যদ্রব্য পলিথিন দিয়ে ঢেকে কেনা-বেচার প্রবণতা বেড়ে যাওয়ায় পলিথিনের ব্যবহার বেড়েছে অনেক গুন বেশি। বাসাবাড়ি ও বাজারে পলিথিনের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি পলিথিনের ব্যাগ ব্যবহার হচ্ছে ত্রাণ বিতরণ এবং দোকানের তৈরি খাবার বাড়িতে সরবরাহের ক্ষেত্রে মোড়ক হিসেবেও। শুধু ঢাকাতেই বাসাবাড়ি ও কেনাকাটায় ব্যবহৃত পলিথিনের ব্যাগ এবং দুঃস্থদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণে ব্যবহৃত পলিথিনের প্যাকেট থেকে প্রায় ৪৪৩ টন প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপন্ন হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। হাসপাতালসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলো যেমন করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রধান কেন্দ্র হিসেবে মনে কর হচ্ছে, তেমনই প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদনের ক্ষেত্রেও এই সময়ে তারা বেশ বড় ভূমিকা রাখছে।

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here

Pages