সাগর-রুনি হত্যার বিচারের দাবিতে ১৫ মার্চ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় ঘেরাও - adsangbad.com

সর্বশেষ

Tuesday, February 11, 2020

সাগর-রুনি হত্যার বিচারের দাবিতে ১৫ মার্চ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় ঘেরাও

অনলাইন ডেস্ক: সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যাকাণ্ডের দ্রুত তদন্ত এবং বিচারের দাবিতে আগামী ১৫ মার্চ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় কর্মসূচি দিয়েছে সাংবাদিক নেতারা। আজ মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) চত্বরে এক বিক্ষোভ সমাবেশে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।
বিক্ষোভ সমা্বেশের সংগঠনের সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ বলেন, ১৫ মার্চ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে স্মারকলিপি দেওয়া হবে।
প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় খুন হন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার এবং এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি। দুজনকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়। ওই রাতে তারা ছাড়া ঘরে ছিল তাদের একমাত্র শিশুসন্তান।
সমাবেশে জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, সরকারের বার বার আশ্বাসের পরও মামলার কোনো চার্জশিট আসছে না। আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সক্ষমতা আছে কিন্তু আট বছরেও তারা মামলার তদন্তে ব্যর্থ হচ্ছেন। সরকারের অনেক সংস্থা আছে, মামলার তদন্তে র‌্যাব ব্যর্থ হলে অন্য কোনো সংস্থাকে দেওয়া হোক।
তিনি বলেন, আমার বিশ্বাস আছে প্রধানমন্ত্রী মমতাময়ী একজন মা। তিনি সাংবাদিকবান্ধব একজন মানুষ। আশা করি, সাগর-রুনির বিচারসহ সব সাংবাদিক হত্যার বিচার হবে।
বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব শাবান মাহমুদ বলেন, আমরা আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে প্রথম থেকেই সোচ্চার ছিলাম, আছি। কোনো ব্যক্তি যদি এটাকে পুঁজি করে লাভবান হয় তবে তাকে সাংবাদিক সমাজ থেকে বয়কট করুন। তবে যদি কেউ জড়িত না থাকে, তাহলে কারো চরিত্র হনন করবেন না। আমরা অপরাধীর সঙ্গে আপোষ করতে জানি না। এ হত্যার বিচারে সরকারে ব্যর্থতা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যর্থতা মেনে নিতে পারিনা।
ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের মহাসচিব এম আব্দুল্লাহ বলেন, আমাদের সহকর্মীর হত্যার বিচারের আশ্বাসের ৪৮ ঘন্টা পার হয়ে এখন ৯৬ হাজার ঘন্টায় এসেছে। তবু হত্যার রহস্য সমাধান হলোনা। হত্যার বিচারের নামে নাটক-তামাশা বন্ধ করুন। আমরা আলোচিত এই হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবো।
ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেন, আমরা রাষ্ট্রের জন্য সাংবাদিকতা করি। রাষ্ট্রের প্রতিটি সংকটে আমরা ছিলাম। মহান স্বাধীনতাযুদ্ধে আমাদের অংশগ্রহণ ছিলো, ভাষা আন্দোলন, গণঅভ্যুথান, স্বৈরাচার পতনে ছিলাম। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানাই, মুজিববর্ষে সাগর-রুনি হত্যার বিচার আমাদের সাংবাদিক সমাজকে উপহার দিন। আমাদের দেওয়া ছোট এ উপহারের মাধ্যমে আপনারাও দায়মুক্ত হবেন।
ডিআরইউ’র সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ চৌধুরীর পরিচালনায় এবং সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদের সভাপতিত্বে আয়োজিত সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সাংবাদিক খায়রুজ্জামান কামাল, দিদারুল আলম, শেখ মামুনুর রশিদ, শহিদুল ইসলাম, সাজ্জাদ আলম খান তপু, অমিয় ঘটক পুলক প্রমুখ।

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here

Pages