তাবিথের অভিযোগ শোনার সময় নাই রিটার্নিং কর্মকর্তার - adsangbad.com

সর্বশেষ

Saturday, February 1, 2020

তাবিথের অভিযোগ শোনার সময় নাই রিটার্নিং কর্মকর্তার


অনলাইন ডেস্ক : সব ভোটকেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেয়াসহ ৩২টি অভিযোগ দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল।
তার তরফে জুলহাস উদ্দিন নামের এক প্রতিনিধি আসলেও ‘কথা বলার সময় নেই’ বলে তাকে বিদায় করে দেন রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম।
শনিবার দুপুর সোয়া ১টায় জুলহাস রিটানিং কর্মকর্তাকে বলছিলেন, বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেয়া, মারধরসহ বেশকিছু অভিযোগ নিয়ে এসেছি। এখনই ব্যবস্থা না নিলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে।
জবাবে আবুল কাসেম বলেন, অভিযোগ দিয়েছেন, রেখে দিলাম, দেখবো। এখন কথা শোনার সময় নেই। অভিযোগ কি আগেই লিখে রেখেছিলেন নাকি?
জবাবে জুলহাস বলেন, আগে কেন লিখে রাখবো। আমাদের এজেন্টদের বের করে দেয়া, মারধর করছে নৌকা প্রার্থীর কর্মীরা। অনেকের মাথা ফাটিয়েছে। তারা হাসপাতালে। আজ ভোট, আপনি এখন ব্যবস্থা না নিলে এমনটা হতে থাকবে।
এসময় কফি খেতে ব্যস্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম বলেন, অভিযোগ দিয়েছেন দেখবো। আগেও তো দেখেছি।
পরে জুলহাস সাংবাদিকদের বলেন, তিনি (রিটার্নিং কর্মকর্তা) আমার কথাই শুনলেন না। এখন আর দুই-তিন ঘণ্টা সময় আছে। এখনও তিনি ব্যবস্থা না নিলে কখন নেবেন? তিনি ফোন করে খোঁজ-খবর নিতে পারেন। প্রমাণ পেলেই ব্যবস্থা নেবেন। তিনি তো অভিযোগ রেখেই দিলেন।
এদিকে নির্বাচনের প্রথম কয়েক ঘণ্টায় সংঘর্ষ, ককটেল বিস্ফোরণ ও এজেন্টদের বের করে দেয়ার বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা বলেছেন, ‘এমন ভোট আমরা চাইনি। এখনও চাই না।’
ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে উত্তরার আইইএস স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভোট দিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।
সিইসি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের প্রতি আমাদের নির্দেশ, এমন ঘটনা যদি ঘটে তারা সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেবে।
নির্বাচনী পরিস্থিতি শান্ত রাখতে প্রার্থী, ভোটার এবং বিভিন্ন প্রার্থীর সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলে, ভোটের পরিবেশ যেন বজায় থাকে। তবে এখন পর্যন্ত ভোটের পরিবেশ নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো অভিযোগ পাননি বলে জানান তিনি।
ভোটার উপস্থিতি সম্পর্কে নুরুল হুদা বলেন, সকাল থেকে যা দেখলাম, এখন পর্যন্ত (বেলা সোয়া ১১টা) ভোটার উপস্থিতি ভালো না। দেখলাম এই কেন্দ্রে (উত্তরার আইইএস স্কুল অ্যান্ড কলেজে) ২৭৬ জন ভোটার এখন পর্যন্ত এসেছে। আশা করছি, পরে আরও আসবে।
তিনি বলেন, সকালের দিকে যে দু-একটি কেন্দ্র পরিদর্শন করেছি সেখানেও লোকজন কম ছিল।
নূরুল হুদা বলেন, আমরা ভোটের পরিবেশ সৃষ্টি করেছি। আমাদের যে দায়িত্ব সেটা পরিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করেছি-রিটার্নিং অফিসার,
আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োগসহ সব কিছু। আমাদের দিক থেকে প্রস্তুতির কোনো ঘাটতি নেই। তিনি বলেন, যারা প্রার্থী, নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে ভোটার আনার দায়িত্ব তাদের বেশি।

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here

Pages